Home » পিয়ারলেস হাসপাতালে অভূতপূর্ব এবং উন্নত প্রযুক্তির মেডিকেল চিকিৎসা

পিয়ারলেস হাসপাতালে অভূতপূর্ব এবং উন্নত প্রযুক্তির মেডিকেল চিকিৎসা

২৭ জুলাই ২০২২, কলকাতা: পিয়ারলেস হাসপাতাল পূর্ব ভারতের প্রথম সম্পূর্ণ ম্যান্ডিবল রিপ্লেসমেন্ট এবং পুনর্গঠন সার্জারি উপস্থাপন করতে পেরে গর্বিত। পিয়ারলেস হাসপাতালের ইএনটি হেড অ্যান্ড নেক সার্জারি বিভাগ বিভিন্ন বিরল চিকিৎসার পাশাপাশি উন্নত প্রযুক্তির কক্লিয়ার ইমপ্লান্ট সার্জারিতে এক দিশারি হিসাবে পরিচিত যা শ্রবণ প্রতিবন্ধকতা কে অতিক্রম করে এক সুস্থ জীবন প্রদানে প্রশংসনীয় ফলাফল অর্জন করেছে।

ডাক্তার শৌভনিক সতপথি, সিনিয়র কনসালটেন্ট ই এন টি হেড এবং নেক সার্জান বলেছে “পিয়ারলেস হাসপাতাল পূর্ব ভারতের প্রথম সম্পূর্ণ ম্যান্ডিবল রিপ্লেসমেন্ট এবং রিকনস্ট্রাকশন সার্জারি পরিচালনা করেছে একজন প্রবীণ নাগরিকের উপর যিনি অত্যন্ত ডায়বেটিক ছিলেন এবং নিম্ন চোয়ালের অস্টিও মাইলাইটিসে ভুগছিলেন যার ফলে তার সম্পুর্ণ নিম্ন চোয়ালে পচন হয়ে গিয়েছিল। সাধারণত বেশিরভাগ রোগীর চোয়ালের একটি অংশ পুর্নগঠিত হয় কিন্তু এখানে সম্পুর্ণ চোয়ালটি প্রতিস্থাপনের প্রয়োজন হয়।একাধিক বিশেষজ্ঞ নিয়ে গঠিত সম্পুর্ন ম্যাডিকেল টিম অস্ত্রপ্রচারের জন্য একটি রোড ম্যাপ পরিকল্পনা করেছিল।পিয়ারলেস হাসপাতালের মডুলার ওটি কমপ্লেক্সে ১২ ঘন্টা অস্ত্রপ্রচারর রোগীর পা থেকে হাড় নিয়ে এবং পূর্বপরিকল্পিত ভাবে তৈরি টাইটানিয়াম অ্যালুমিনিয়াম মিশ্রনের বানানো রিকন্সট্রাকশন প্লেট দিয়ে সম্পূর্ণ নিম্ন চোয়াল নতুন করে তৈরি করা হয়।

পিয়ারলেস হাসপাতাল গর্বিত ডক্টর শৌভনিক সতপথি, সিনিয়র কনসালটেন্ট ইএনটি এবং হেড নেক সার্জন, ডাঃ দীপাঞ্জন দে, কনসালটেন্ট প্লাস্টিক অ্যান্ড রিকনস্ট্রাকটিভ সার্জন, ডাঃ দেবদীপ চক্রবর্তী, সিনিয়র কনসালটেন্ট ডেন্টাল অ্যান্ড ম্যাক্সিলোফেসিয়াল সার্জন এবং মেডিকেল সম্মিলিত দল। ডাঃ চন্দ্রমৌলি ভট্টাচার্য, ডাঃ অনুপমমৈতি, ডাঃ অমিতাভ সুর, ডাঃ এ.কে. অ্যানেস্থেটিস্টের দলসহ সরকার; ডাঃ তারিত চ্যাটার্জি এবং দল এবং স্ক্রাব নার্স: সিস্টার মার্সি এবং সোনিয়া।

পিয়ারলেস হাসপাতালের ব্যবস্থাপনা পরিচালক ডাঃ সুজিত কর পুরকায়স্থ মিডিয়াকে সম্বোধন করার সময় বলেন, “পিয়ারলেস হাসপাতাল দুর্বল অর্থ -সামাজিক বিভাগের রোগীদের জন্য সর্বদা সংহবেদনকাল,কক্লিয়ার ইমপ্লান্টের মতো পদ্ধতিতেও এটা প্রযোজ্য যারা শুনতে পায় না, কথা বলতে শেখে না I যারা শুনতে এবং কথা বলতে পারে, শ্রবণ ক্ষমতা হারিয়ে গেলে পৃথিবী থমকে যায় l এরূপ রোগীদের আধুনিক তম চিকিৎসার মাধ্যমে শ্রবণ শক্তি পূর্ণরূপে ফিরিয়ে দেওয়া যায়, এবং এ রোগীরা স্পষ্ট ভাবে কথা বলতে পারেন l ককলিয়ার ইমপ্লান্টেশন এ আধুনিক তম চিকিৎসা l এ চিকিৎসার দ্বারা এ রূপ রোগীদের নতুন করে গড়ে ওঠার সুযোগ করে দেয় l
“মুখ ও বধির” এ তকমার থেকে বেরিয়ে নতুন করে অরে পাঁচজন সাধারণ মানুষের মতো আরো বেড়ে ওঠে l

(Left to Right) Dr. Tarit Chatterjee, Dr. Deepanjan Dey, Mr. Ravindra Pai, Deputy Managing Director, Dr. Jayanta Bhowmick and child Debaditya Das (patients of cochlear implants) , Dr. Manojendra Narayan Bhattacharyya, Prof Dr. Krishnangshu Ray, Medical Director, Dr. Shouvanik Satpathy and Mr. B. Venkat Rao, patient of East India’s First Total Mandible Replacement and Reconstruction Surgery.)

পিয়ারলেস হাসপাতাল ডঃ মনোজেন্দ্র নারায়ণ ভট্টাচার্য, সিনিয়র কনসালট্যান্ট ইএনটি হেড অ্যান্ড নেক সার্জন এবং কক্লিয়ার ইমপ্লান্ট বিশেষজ্ঞ এবং ফ্যাকাল্টি, তিনিই কক্লিয়ার ইমপ্লান্টের উদ্যোগে নেতৃত্ব দিচ্ছেন তাকে উপস্থাপন করতে পেরে আমরা গর্বিত। তার দক্ষতা তাকে আন্তর্জাতিক সীমানা পেরিয়ে কক্লিয়ার ইমপ্লান্টের উপর কর্মশালা পরিচালনার জন্য আমন্ত্রণ পেতে সক্ষম করেছে।

“কক্লিয়ার ইমপ্লান্ট হল টাইটানিয়াম দিয়ে তৈরি একটি কৃত্রিম জটিল ইলেকট্রনিক ডিভাইস, যা অস্ত্রোপচারের মাধ্যমে কক্লিয়ার নামক অভ্যন্তরীণ অঙ্গে প্রতিস্থাপন করা হয়”। এটি শব্দকে বৈদ্যুতিক স্পন্দনে রূপান্তরিত করে এবং শ্রবণ এবং মস্তিষ্কের স্নায়ুকে উদ্দীপিত করে, ফলস্বরূপ যারা গভীর ভাবে বধির বা ক্ষীণশ্রবনে ভুগছেন তাদের শব্দ প্রদান করতে সক্ষম হয় I পিয়ারলেস ছিল পূর্ব ভারতে কক্লিয়ার ইমপ্লান্ট করা প্রথম হাসপাতাল। ২০১৩ সাল থেকে নিয়মিতভাবে পিয়ারলেস হাসপাতালেএই চিকিৎসা পাওয়া যায়। স্ক্রীনিং প্রক্রিয়ার মাধ্যমে, শ্রবণশক্তি যে কোনো বয়সে শনাক্ত করা যায় (এটি এমনকি নবজাতকের ক্ষেত্রেও করা যেতে পারে)। এই পরীক্ষাটি ব্যথাহীন, কয়েক মিনিট সময় নেয় এবং সস্তা। যদি একজন ব্যক্তির গুরুতর থেকে গভীর শ্রবণশক্তি হ্রাস পায়, তাহলে সেই অনুযায়ী কক্লিয়ার ইমলান্ট পরিকল্পনা করা যেতে পারে । কক্লিয়ার ইমপ্লান্টেশন শুধুমাত্র অস্ত্রোপ্রচারেই সীমিত নয় I বরং শ্রবণের যাত্রা এটি দিয়ে শুরু । “অর্থহীন শব্দ বা কোলাহল থেকে অর্থপূর্ণ ও তাৎপর্যপূর্ণ শব্দে রূপান্তরটি পিয়ারলেস হাসপাতালের অত্যন্ত অভিজ্ঞ অডিওলজিস্ট দ্বারা করা হয়ে, যারা অস্ত্রোপচারের পরবর্তী রোহিদের অডিও লজিকাল বেহাপলিটেশন থেরাপি দিয়ে থাকেন বলেছেন ড; মনোজেন্দ্র নারায়ণ ভট্টাচার্য l

পিয়ারলেস হাসপাতাল সম্পর্কে: পিয়ারলেস হাসপাতাল হল পূর্ব ভারতের একটি ৪০০ শয্যা বিশিষ্ট মাল্টিস্পেশালিটি কর্পোরেট হাসপাতাল যা সহানুভূতি, স্বচ্ছতা, চিকিৎসা নৈতিকতা এবং সামর্থ্যের মূল নীতিগুলিকে ঘিরে তৈরি করা হয়েছে এবং এটি কলকাতার দক্ষিণ প্রান্তের পঞ্চসায়ারে অবস্থিত যেখানে রোগীরা সুস্থ হয়। সবুজ এবং প্রশস্ত পরিবেশ। হাসপাতালের ফোকাস ক্ষেত্রটি ক্লিনিকাল উৎকর্ষতা এবং ক্লিনিকাল গবেষণার উপর রয়েছে যার কারণে পিয়ারলেস হাসপাতালের কৃতিত্বের সাথে তার অজস্র বিরল এবং জটিল কেস পরিচালনা করা হয়েছে, যার মধ্যে অনেকগুলি পূর্বাঞ্চলের প্রথম হিসাবে স্বীকৃত ছিল এবং পিয়ার রিভিউ করা জার্নালে বৈশিষ্ট্যযুক্ত।

আরও তথ্যের জন্য, অনুগ্রহ করে যোগাযোগ করুন:

ডাঃ মনোজেন্দ্র নারায়ণ ভট্টাচার্য, সিনিয়র কনসালটেন্ট ইএনটি হেড অ্যান্ড নেক সার্জন – ৯০৫১৭৩২৮৪১

ডাঃ শৈবনিক সতপথি, সিনিয়র কনসালটেন্ট ইএনটি হেড অ্যান্ড নেক সার্জন – ৯১৯৮৩০৪গা৭৩৪

ক্যান্ডিড কমিউনিকেশন
সুমনা সরকার- ৮৬৯৭৭২৭২৫৭

পিয়ারলেস হাসপাতাল
সুচিস্মিতা শর্মা – ৯৯০৩৩৬৪৫৬

    Leave a Reply

    Your email address will not be published. Required fields are marked *

    Click to Go Up
    error: Content is protected !!