Home » “ভালোবাসা কঠিন, ভালো থাকা আরও কঠিন আর তার থেকেও কঠিন ভালো রাখা।”

“ভালোবাসা কঠিন, ভালো থাকা আরও কঠিন আর তার থেকেও কঠিন ভালো রাখা।”

“ভালোবাসা কঠিন, ভালো থাকা আরও কঠিন আর তার থেকেও কঠিন ভালো রাখা।” এক অন্যরকম ভালোবাসার গল্প নিয়ে আসছে ‘প্রসেনজিৎ ওয়েডস ঋতুপর্ণা’

আজ মুক্তি পেল নতুন ছবি প্রসেনজিৎ ওয়েডস ঋতুপর্ণা-র টাইটেল ট্র্যাক। জমাটি গানে আর কথায় ২২ বছর আগের সেই গান নতুন মোড়কে, এক্কেবারে আধুনিক। সেখানে যেমন প্রসেনজিৎকে পোয়েনজিৎ বলা নিয়ে খুনসুটি রয়েছে, তেমনই রয়েছে পুরনো গানের নস্ট্যালজিয়াকে মনে করিয়ে প্রসেনজিৎ ঋতুপর্ণার পুরনো সেই গানের কিছু ক্লিপিংস। আর সেই গানের সঙ্গে পা মিলিয়ে যিনি নাচ করলেন, ২২ বছরে যেন তাঁর বয়স থেকে রয়েছে একই জায়গায়। তিনি প্রসেনজিৎ চট্টোপাধ্যায়। তার সঙ্গে তাল মিলিয়ে নাচ করলেন ঈপ্সিতা মুখোপাধ্যায়। এই ছবির হাত ধরেই বড়পর্দায় ডেবিউ হবে তাঁর। এক ফ্রেমে ইন্ডাস্ট্রি আর ইন্ডাস্ট্রিতে আসা সদ্য নতুন এক নায়িকা। জমে উঠল মঞ্চ।

‘আমি প্রসেনজিৎকেই বিয়ে করব… বাড়িতে বউ আছে, ছেলে আছে’- বাবার সামনে জোর গলায় ঘোষণা ঋতুপর্ণার (ইপ্সিতা মুখোপাধ্যায়)। কিন্তু সম্মন্ধ করে শেষমেষ সেই অন্ধ প্রসেনজিৎ ভক্তর বিয়ে হয় অন্য প্রসেনজিৎ-এর (ঋষভ বসু) সঙ্গে। স্বপ্নের জগতেই বিচরণ করে ঋতুপর্ণা, স্বপ্ন যখন ভাঙে আর বিয়ের পিঁড়িতে হবু স্বামীর মুখোমুখি হয় তার সব স্বপ্ন ভেঙে খানখান হয়ে যায়। এমনই ছবি ধরা পড়ল সম্রাট শর্মার আসন্ন ছবি ‘প্রসেনজিৎ ওয়েডস ঋতুপর্ণা’র ট্রেলারে। বুধবার সামনে এল এই ছবির ট্রেলার। যা উপস্থাপনা করছেন স্বয়ং প্রসেনজিৎ চট্টোপাধ্যায় এবং ঋতুপর্ণা সেনগুপ্ত। ছবির যৌথ প্রযোজকের ভূমিকাতেও রয়েছেন সবার প্রিয় বুম্বাদা। ছবিতে ক্যামিও চরিত্রে অভিনয়ও করছেন বুম্বাদা। বিশেষ অ্যাপিয়ারেন্সে থাকবেন ঋতুপর্ণা সেনগুপ্তও।

এই বিয়েকে বিয়ে বলে মানতেই রাজি নয় ঋতুপর্ণা, কারণ মনে মনে প্রসেনজিৎ চট্টোপাধ্যায়কেই নিজের স্বামীর আসনে বসিয়েছে সে। ‘কী আছে ওই ৬০ বছরের বুড়ো মালটার মধ্যে?’ বরকে কষিয়ে চড় ঋতুপর্ণার, প্রসেনজিৎ দর্শন দেবেন? সুপারস্টার প্রসেনজিৎকে ভালোবাসে আম আদমি প্রসেনজিৎ-এর গলায় মালা দিয়েছে ঋতুপর্ণা। অসুখী দাম্পত্য টিকিয়ে রাখতে চায় না সে, এরপর কী হবে?

কিন্তু বিয়েটা যে হয়ে গেছে! বউয়ের প্রশ্নবাণের মুখোমুখি হয়ে ঋতুপর্ণার স্বামী জানায় বউয়ের ‘ইচ্ছেপূরণ’ করবে বলেই এই বিয়েটা করেছে সে। অর্থাৎ সুপারস্টার প্রসেনজিৎ-এর সঙ্গে তাঁর ‘পাগল ভক্ত’ ঋতুপর্ণার দেখা করানোর কথা জানায়। ব্যাস, এইটুকু শুনেই আনন্দে আত্মহারা ঋতুপর্ণা। কিন্তু এখানেই কাহিনিতে টুইস্ট! সুপারস্টার প্রসেনজিৎ-কে নিয়ে বউয়ের পাগলামি একটা সময় খানিক অসহ্য হয়ে ওঠে প্রসেনজিৎ-এর কাছে, মানে ঋষভ বসুর কাছে। সে সরাসরি বলেই বসে, ‘কী আছে ওই ৬০ বছরের বুড়ো মালটার মধ্যে?’ বদলে কপাটে জোটে কষিয়ে চড়। পাশাপাশি তাঁর বক্তব্য, ‘নেতাজিকে নিয়ে ছ্যাবলামি করা মানুষটাকে তোরা হিরো বলতে পারিস আমি না’। একপ্রকার স্পষ্ট ‘নেমসেক’ প্রসেনজিৎ-কে মোটেই পছন্দ করেন না মানসী সিনহা এবং অভিজিৎ গুহ-র জামাই বাবাজীবন। জীবনের কঠিন সত্যের মুখোমুখি দুজনেই-‘ভালোবাসা কঠিন, ভালো থাকা আরও কঠিন আর তার থেকেও কঠিন ভালো রাখা’। তাহলে এই সম্পর্কের পরিণতি কী?
ভুল বোঝাবুঝি কি মিটবে দুজনের? সুপারস্টার প্রসেনজিৎ আর ঋতুপর্ণা- এই বিয়েটা বাঁচাতে ঠিক কোন ভূমিকা পালন করবেন? এইসব প্রশ্নের উত্তর মিলবে আগামী ২৫শে নভেম্বর সিনেমাহলে। ওইদিনই মুক্তি পাবে ‘প্রসেনজিৎ ওয়েডস ঋতুপর্ণা’। এই অভিনব বিয়ের সাক্ষী থাকতে দর্শক হল ভরাবে কিনা এখন সেটাই দেখবার।

</code> 

    Leave a Reply

    Your email address will not be published. Required fields are marked *

    Click to Go Up
    error: Content is protected !!